Saturday, April 13, 2024
spot_img
Homeবাংলাপছন্দের ৫ নতুন গাড়ি: যা ৩৫ লাখের মধ্যে

পছন্দের ৫ নতুন গাড়ি: যা ৩৫ লাখের মধ্যে

যানজটের শহরে ব্যক্তিগত গাড়ি কারও কাছে প্রশান্তি, কারও কাছে স্বাচ্ছন্দ্যের পরিচায়ক। গাড়ির মালিকানা তো অনেকেই চায় কিন্তু স্বপ্ন আর সামর্থ্যের বেড়াজালে তা পূরণ হয় কজনের? তবে আপনার বাজেট যদি হয় ৩৫ লাখের ঘরে, বেশ কয়েকটি গাড়ি জায়গা করে নিতে পারে পছন্দের তালিকায়। 

হুন্দাই অ্যাকসেন্ট

হুন্দাই অ্যাকসেন্ট

ইট-পাথরের দুর্গম রাস্তায় আরামদায়ক ভ্রমণ কিংবা ১৫.৫ কিলোমিটার মাইলেজে জ্বালানী সাশ্রয়ের ক্ষেত্রে এক কথায় হুন্দাই অ্যাকসেন্টের কোনো জুড়ি নেই। এটির মূল্য একদিকে যেমন রয়েছে হাতের নাগালে, দেখতেও বেশ আকর্ষণীয়। দক্ষ পরিচালনার মাধ্যমে হুন্দাই অ্যাকসেন্ট গ্রাহক সর্বোচ্চ সুবিধা পেতে পারেন। এটির সবগুলো ভ্যারিয়েন্টে একটি সিভিটি (কনটিনিউয়াস ভ্যারিয়েবল অটোমেটিক ট্রান্সমিশন) ছাড়াও রয়েছে ১ দশমিক ৪ লিটারের ১২০ হর্সপাওয়ারবিশিষ্ট ৪টি সিলিন্ডার ইঞ্জিন।

মূল্য: ২৭,০০,০০০ থেকে ২৯,০০,০০০ টাকা

ইঞ্জিন: ৪ সিলিন্ডার ডিওএইচসি

ডিসপ্লেসমেন্ট (সিসি): ১ হাজার ৩৬৮

 

ব্রেক: ভেন্টিলেটেড ডিস্ক (সামনে), ড্রাম (পিছনে)

 

সাসপেনশন: ম্যাকফারসন স্ট্রাট (সামনে), কাপলড টরসন বিম এক্সেল (পিছনে)

ট্রান্সমিশন: স্বয়ংক্রিয় গতি ৬

অন্যান্য ফিচার: পুশ-বোতাম স্টার্ট/স্মার্ট কী, রিওস্ট্যাট এবং ইলেকট্রনিক স্ট্যাবিলিটি কন্ট্রোল, সিট ফোল্ডিং সিস্টেম (৬০:৪০), স্ট্যাটিক বেন্ডিং লাইট, হিল স্টার্ট অ্যাসিস্ট কন্ট্রোল।

সুজুকি সুইফট

সুজুকি সুইফট

সুজুকি সুইফটকে ৯০-এর দশকে সস্তা এবং আকর্ষণহীন গাড়ি বলা হলেও বর্তমানে এটি বেশ পরিচিতি পেয়েছে আকার এবং গতির জন্য। বেশিরভাগ সেডানের চেয়ে এই ছোট হট-হ্যাচটি ঢাকা শহরের অলিগলিতে বেশ স্বাছন্দ্যে চলাচল করতে সক্ষম। ৯০০ কেজি ওজনের সুজুকি সুইফট অনেকটা লোটাস অ্যালিসের সমান। এক কথায় ১ দশমিক ২ লিটার ১২ভি মাইল্ড-হাইব্রিড ড্রাইভিং ব্যবহারে এই গাড়িটিকে বেশ প্রাণবন্ত করে তুলেছে।

মূল্য: ১৫,০০,০০০ থেকে ১৯,০০,০০০ টাকা

ইঞ্জিন: অ্যাডভান্সড কে-সিরিজ ডুয়াল জেট, স্টার্ট-স্টপ ফাংশন সম্বলিত ডুয়াল ভিভিটি ইঞ্জিন

ডিসপ্লেসমেন্ট  (সিসি): ১ হাজার ১৯৭

ব্রেক: ডিস্ক (সামনে), ড্রাম (পিছনে)

সাসপেনশন: কয়েল স্প্রিং ম্যাকফারসন স্ট্রাট (সামনে), টরসন বিম (পিছনে)

ট্রান্সমিশন: স্বয়ংক্রিয় এজিএস-৫

অন্যান্য ফিচার: ১৭.৭৮ সে.মি টাচস্ক্রিন স্মার্ট প্লে স্টুডিও, অটো গিয়ার শিফট প্রযুক্তি, হিল হোল্ড কন্ট্রোল

হোন্ডা সিটি

হোন্ডা সিটি

হোন্ডা কোম্পানির অন্যান্য গাড়ির তুলনায় এ বছর হোন্ডা সিটি বেশ আকর্ষণীয় ডিজাইন নিয়ে হাজির হয়েছে। হোন্ডা সিভিক আর অ্যাকর্ডের মতো ডিজাইনের দেখতে হোন্ডার প্রঞ্চম প্রজন্মের এই গাড়িটিতে এবার নজর দেওয়া হয়েছে কেবিন স্পেস এবং ইন্টেরিয়র ডিজাইনে। যা এটিকে ফ্যামিলি ওরিয়েন্টেড গাড়ি হিসেবে পরিচিতি দিয়েছে। এই মডেলটি হোন্ডার অন্যান্য গাড়ির মতোই মানসম্মত হবে।

মূল্য: ৩১,০০,০০০ – ৩৪,০০,০০০ টাকা

ইঞ্জিন: ১.৫ লিটার ইন-লাইন ৪-সিলিন্ডার, ১৬-ভালভ, ডিওএইচসি আই-ভিটিইসি

ডিসপ্লেসমেন্ট (সিসি): ১ হাজার ৪৯৮

ব্রেক: ভেন্টিলেটেড ডিস্ক (সামনে), ড্রাম (পিছনে)

সাসপেনশন: স্ট্যাবিলাইজার বার সম্বলিত ম্যাকফারসন স্ট্রাট (সামনে), টরসন বিম (পিছনে)

ট্রান্সমিশন: সিভিটি (কন্টিনিউয়াস ভ্যারিয়েবল ট্রান্সমিশন)

অন্যান্য ফিচার: হিল স্টার্ট অ্যাসিস্ট, সিট ফোল্ডিং সিস্টেম (৬০:৪০), প্যাডেল শিফটার, ক্রুজ কন্ট্রোল, স্মার্ট এন্ট্রি এবং স্টার্ট, ব্লাইন্ড ভিউ মনিটর সিস্টেম।

টয়োটা ইয়ারিস

বরাবরের মতো নির্ভরযোগ্য গাড়ি নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান টয়োটার অন্যান্য গাড়ির মতো এ বছরের নতুন মডেল হলো ইয়ারিস। অনেকটা ধীরগতির হলেও টয়োটার সাবকম্প্যাক্ট গাড়িগুলোর মধ্যে ইয়ারিস অন্যতম। সাধারণ রাস্তায় ১৪ কিলোমিটার এবং হাইওয়েতে ১৭ কিলোমিটার মাইলেজে জ্বালানী সাশ্রয়ে এই গাড়িটি বেশ দক্ষভাবে পরিচালনার যোগ্য। অসম রাস্তায় হালকা ঝাঁকুনি দিলেও আরামদায়ক ভ্রমণের সঙ্গী এই গাড়িটিকে পছন্দের তালিকায় রাখা যেতেই পারে। কেন না জিআর কাউন্টারপার্টের দিকে নজর না দিলে বাজেটের মধ্যে সামঞ্জস্যকারী গাড়ি হিসেবে ইয়ারিস খুব একটা মন্দ নয়।

মূল্য: ৩২,০০,০০০ – ৩৪,০০,০০০ টাকা

ইঞ্জিন: ২এনআর-এফই, ৪-সিলিন্ডার ইনলাইন, ডুয়াল ভিভিটি-আই সহ ১৬-ভালভ ডিওএইচসি

ডিসপ্লেসমেন্ট (সিসি): ১ হাজার ৪৯৬

ব্রেক: ভেন্টিলেটেড ডিস্ক (সামনে), ড্রাম (পিছনে)

সাসপেনশন: ম্যাকফারসন স্ট্রাট (সামনে), টরসন বিম (পিছনে)

ট্রান্সমিশন: টিপট্রনিক ট্রান্সমিশনের সম্বলিত সিভিটি

অন্যান্য ফিচার: আসন অনুপাত (৬০:৪০), মাল্টিফাংশন ডিসপ্লেসহ অপ্টিট্রন মিটার, স্মার্ট এন্ট্রি এবং স্টার্ট, এবিডি (ইলেক্ট্রনিক ব্রেক ফোর্স ডিস্ট্রিবিউশন)

ডিএফএসকে গ্লোরি ৫৮০ আই-অটো

ডিএফএসকে গ্লোরি ৫৮০ আই-অটো

চীনা অটোমোবাইল শিল্পের একটি অন্যতম নাম হলো ডিএফএসকে, যার সঙ্গে জুড়ে আছে ফ্রেঞ্চ রেনল্ট ও পিউজোট, কোরিয়ান কিয়া, জাপানিজ হোন্ডা ও নিসান, জার্মান বশ, ইতালিয়ান ফিয়াট এবং ব্রিটিশ ডেলফির মতো বড় বড় প্রতিষ্ঠানের নাম। গ্লোরি ৫৮০ আই-অটো মডেলটি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়েছে এসব স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের নানা পার্টস, যা গাড়িটিকে একটি অসাধারণ রূপ দিয়েছে। ৭-সিটার ক্রসওভারের এই গাড়িটির মূল্যও রয়েছে হাতের নাগালে। এ ছাড়া চমৎকার ডিজাইনসহ ২০০ মিমি গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স, স্টিফ সাসপেনশন, ফাইভ-স্টার এনসিএপি (নিউ কার অ্যাসেসমেন্ট প্রোগ্রাম) ক্র্যাশ সেফটি রেটিং, অসাধারণ ড্রাইভিং অভিজ্ঞতা গাড়িটিকে টপ-নচ ফিচারের তালিকাভুক্ত করেছে।

মূল্য: ৩১,০০,০০০ থেকে ৩৫,০০,০০০ টাকা

ইঞ্জিন: এসএফজি ১.৫ লিটার টার্বোচার্জড ফিয়াট

ডিসপ্লেসমেন্ট (সিসি): ১ হাজার ৪৯৮

ব্রেক: ডিস্ক (সামনে), ডিস্ক (পিছনে)

সাসপেনশন: স্ট্যাবিলাইজার সহ ম্যাকফারসন সাসপেনশন (সামনে), স্টেবিলাইজারসহ টরসিয়াল বিম (পিছনে)

ট্রান্সমিশন: সিভিটি পাঞ্চ বেলজিয়াম

অন্যান্য ফিচার: ইএসপি (এবিএস, ইবিডি, ইবিএ), হিল হোল্ড কন্ট্রোল, আই-টক/ভয়েস কমান্ড, ইলেকট্রিক পাওয়ার ব্যাকডোর, ক্র্যাশ অটো, ক্রুজ কন্ট্রোল, টিপিএমএস, ৭০/৩০ স্প্লিট সিট

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments